পর্যটক উদ্ধার করে ‘আনসাং হিরো’ উপাধি পেলেন নুরুল আলম

0
115
  |  শনিবার, জানুয়ারি ৩০, ২০২১ |  ৮:৪৯পূর্বাহ্ণ
সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ নুরুল আলম দুলালের সঙ্গে উদ্ধার হওয়া পর্যটক ও সীতাকুণ্ড ফায়ার সার্ভিস টিমের সদস্যরা।
সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ নুরুল আলম দুলালের সঙ্গে উদ্ধার হওয়া পর্যটক ও সীতাকুণ্ড ফায়ার সার্ভিস টিমের সদস্যরা।

পর্যটক উদ্ধার করে ‘আনসাং হিরো’ উপাধি পেয়েছন সীতাকুন্ড ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ নুরুল আলম দুলাল।  নবাগত এই সিনিয়র স্টেশন অফিসার সীতাকুন্ড ফায়ার স্টেশনে যোগ দিয়ে একটি উদ্ধার অভিযানে গেলে উদ্ধার হওয়া পর্যটকরা তাকে ‘আনসাং হিরো’ বলে আখ্যায়িত করে সাংবাদিকদের কাছে ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সীতাকুণ্ডের বাড়বকুণ্ড পাহাড় থেকে উদ্ধার হওয়া পাঁচ পর্যটকের একজন রামকৃষ্ণপুর গ্রামের শামছুল হুদার ছেলে হাবীবুর নবী শুভ এভাবেই উদ্ধারের হওয়ার কাহিনী বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন।

সীতাকুন্ড ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ নুরুল আলম দুলাল বলেন, শুক্রবার সীতাকুণ্ড পাহাড়ে বেড়াতে ওঠেন ৫ দর্শনার্থী। কিন্তু কিছুক্ষণ বেড়ানোর পরই তারা পথ হারিয়ে ফেলেন। শেষে দিশেহারা হয়ে তারা ফোন করেন ৯৯৯ এ। পরে সীতাকুণ্ড মডেল থানাকে সাথে নিয়ে উদ্ধার অভিযানে ামে সীতাকুণ্ড ফায়ার সার্ভিসের  টিম।  এই অভিযানে নেতৃত্ব দেন সদ্য যোগদান করা সীতাকুন্ড ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ নুরুল আলম দুলাল। ঐ পাহাড়ে দীর্ঘ সময় খুঁজে তাদেরকে অক্ষত অবস্থায় পুনরায়  নামিয়ে আনা হয়।

থানা সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার দুপুর পৌনে ৩টায় ৯৯৯ থেকে সীতাকুণ্ড থানায় ফোন করে জানানো হয় উপজেলার বাড়বকুণ্ড পাহাড়ে ৫ পর্যটক পথ হারিয়ে আটকে পড়ে আছেন। তারা হলেন লক্ষীপুর জেলার চন্দ্রগঞ্জ থানার রামকৃষ্ণপুর গ্রামের শামছুল হুদার ছেলে হাবীবুর নবী শুভ (২৩), নোয়াখালী সুধারামপুর থানার মহতাপপুর গ্রামের শাহআলমের ছেলে শাহরিয়াম ইমন (২৩), চট্টগ্রাম আনোয়ারা থানার জুঁইদন্ডি গ্রামের মুক্তার হোসেনের ছেলে নাহিদ (১৪), সীতাকুণ্ডের বাড়বকুণ্ড ইউনিয়নের মান্দারীটোলা গ্রামের রাসেলের ছেলে মো. সানি (৮) ও নোয়াখালী চরজব্বার থানার সুবর্ণচর গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (২৬)। এই খবর পেয়ে থানা ও ফায়ার সার্ভিসের যৌথ টিম সেখানে গিয়ে তাদেরকে খুঁজে বের করেন।

সীতাকুণ্ড থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বণিক বলেন, নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম থেকে আসা পর্যটকরা সীতাকুণ্ডের এসে নাহিদ ও সানিকে নিয়ে বাড়বকুণ্ড পাহাড় দর্শনে যান। কিন্তু পাহাড়ে ঘুরতে ঘুরতে সবাই পথ হারিয়ে ফেলেন। উপায় না দেখে তারা ৯৯৯ এ ফোন করলে সেখান থেকে আমাদেরকে বিষয়টি জানানো হয়। খবর পেয়ে আমাদের পুলিশ ফায়ার সার্ভিসের সহায়তায় তাদেরকে উদ্ধার করে। নিচে ফিরতে পেরে উদ্ধারকৃতরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here